অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসেই করা যাবে প্রোগ্রামিং!!

অনলাইন ডেস্ক
অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস আসার পর থেকে স্মার্টফোনে কী কী করা যেতে পারে সেটা আসলে কল্পনাকেও ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্য সবচেয়ে চমকপ্রদ যে বিষয়গুলো রয়েছে তার একটি হলো অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে সি প্রোগ্রামিং করা। কিংবা প্রাথমিকভাবে সি প্রোগ্রামিং ব্যবহার করে সমস্যা সমাধান করতে শেখা। যার মাধ্যমে আপনি নিজেও একজন প্রোগ্রামার হয়ে ওঠার স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করার শুরুটা করতে পারেন!

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সবকিছুই এখন প্রোগ্রামং নির্ভর। একজন ভালো মানের প্রোগ্রামারের ভবিষ্যৎ যে আগামী দিনে সবসময়ই উজ্জ্বল তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। অথচ প্রোগ্রামিং শেখা জিনিসটা যতোটা কঠিন কিংবা কষ্ট সাধ্য আমরা মনে করি, ব্যাপারটি আসলে মোটেও সেরকম নয়! বরং এটি একদিকে যেমন সহজসাধ্য, ঠিক তেমনই আনন্দময়! প্রোগ্রামিং নেশা একবার আপনাকে পেয়ে গেলে, দেখবেন সেটা একটা উত্তেজনায় পরিপূর্ণ গেমের চেয়ে কোন অংশেই কম উপভোগ্য নয়!

অ্যান্ড্রয়েডে প্রোগ্রামিং শেখা!
আজকে আমরা কীভাবে অ্যান্ড্রয়েডে প্রোগ্রামিং শেখা শুরু করব সেটা নিয়ে আলোচনা করব। মূলত সি প্রোগ্রামিং শেখাই হবে আজকের আলোচনার বিষয়! চলুন দেরি না করে শুরু করে দিই!

ছবিঃ সংগৃহীত

সি প্রোগ্রামিংসহ যে কোন প্রোগ্রামিং করার জন্য মূলত যে জিনিসটি লাগে, সেটা হলো কম্পেইলার। কিংবা একটি IDE. (কম্পেইলার বা IDE কী জিনিস সেটা জানা এই আর্টিকেলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়। আমরা এখন এটিকে সহজ ভাষায় প্রোগ্রাম চালানোর একটি অ্যাপস হিসেবে বিবেচনা করি।) তবে যেহেতু আমরা প্রোগ্রামিং শেখাটা শুরু করব, তাই কম্পেইলারের সাথে শেখার জন্য বাংলা একটি চমৎকার অ্যাপের সাহায্য নেব।

অনলাইন আইটি কোর্স করার জন্য সেরা ৩টি ওয়েবসাইট
তাই এখন শুরুতেই আপনাকে যেটি করতে হবে, তা হলো প্লে স্টোর থেকে বিনামূল্য দুইটি অ্যাপ নামিয়ে নেওয়া।

ছবিঃ সংগৃহীত

প্লে স্টোর, ইউটিউব এবং অনলাইনে বাংলায় সি প্রোগ্রামিং শেখার অসংখ্য অ্যাপ বা টিউটোরিয়াল আছে। কিন্তু তার মধ্য থেকে আমার কাছে শেখা শুরু করার জন্য এটিকে সবচেয়ে সহজবোধ্য বলে মনে হয়েছে। এটি মূলত তামীম শাহরিয়ার সুবিনের লেখা “কম্পিউটার প্রোগ্রামিং” বই এর ইবুক ভার্সন।

একবার নামিয়ে নিয়ে ওপেন করলে শুরু থেকে পড়েই বুঝে নিতে পারবেন। এটিকে নিয়ে তাই আর কথা বাড়াচ্ছি না।
এবার দ্বিতীয় অ্যাপটি নামিয়ে নেয়া যাক!

গুগল প্লে স্টোরে সি প্রোগ্রামিং কম্পেইল করার জন্য বেশ কয়েকটি IDE অ্যাপস আছে। CppDroid বা C4Droid অ্যাপে আছে অফলাইনে কাজ করার মতো ফিচার। ব্যক্তিগতভাবে আমার নিজের কাছেও ভালো লাগে C4Droid অ্যাপটি। কিন্তু সেগুলো হয় একটু বেশি জটিল নয়ত কিনে নিতে হবে টাকা খরচ করে। নয়ত ডাউনলোড করতে হবে থার্ড পার্টি কোন সাইট থেকে। তাই সবদিক থেকে Dcoder অ্যাপটিকেই আমার কাছে কমফোর্টেবল বলে মনে হয়েছে। তাই আমরা এখানে এই অ্যাপটির ব্যাপারেই দেখব।

ছবিঃ সংগৃহীত

এখানে শুরুতেই বলে নেওয়া দরকার, অ্যাপটি সম্পূর্ণ অনলাইন ভিত্তিক! অর্থাৎ এটি ব্যাবহার করতে হলে আপনার ফোনে ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে। এই ছোট্ট সমস্যাটি ছাড়া সি প্রোগ্রামিং শেখার জন্য বিনামূল্যের এটি একটি সেরা অ্যাপ। চালু করার সময় আপনাকে সাইন আপের একটি পেইজ দেখাবে। চাইলেই এটিকে স্কিপ করতে পারবেন।

অনলাইনে পড়াশুনা করার জনপ্রিয় কিছু ওয়েবসাইট
এরপরে আপনাকে সোজা নিয়ে যাবে অ্যাপটির মেইন পেইজে। যেখান থেকে আপনাকে Code Now অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে। এটিতে চাপ দিলেই দেখবেন লেখার জন্য ধূসর রঙের চমৎকার একটি উইন্ডো ওপেন হয়েছে। এবারে উইন্ডোর বাম পাশে Java লেখাটির উপরে ক্লিক করে উপরের দিকে স্ক্রল করে C সিলেক্ট করে নিন। ব্যাস রেডি হয়ে গেল আপনার সি প্রোগ্রামিং লেখার কম্পেইলার IDE. এবার বইটা দেখে শুরু করে দিন সি প্রোগামিং শেখা!!

প্রোগ্রাম লেখা শেষ হলে নিচে ডান পাশে কোনায় গোল প্লে বাটনে ক্লিক করেই প্রোগ্রামটি রান করা যাবে খুব সহজেই। প্রোগ্রামের জন্য দরকারী সিম্বলগুলো পাবেন এডিটর উইন্ডোতেই। সুতরাং যে কীবোর্ডই ব্যবহার করুন না কেন, সিম্বল নিয়ে দুশ্চিন্তা একদমই করতে হবে না।

প্রোগ্রাম লেখা হয়ে গেলে সেটাকে সেভ করে রাখা যাবে বা সেভ করে রাখা কোন প্রোগ্রাম ওপেন করা যাবে এডিটর উইন্ডোর বাম পাশের উপরের বাটনগুলো ব্যাবহার করে!

গেম ডেভেলপমেন্টের জন্য সেরা ৫টি গেম ইঞ্জিন সফট্ওয়্যার
তবে যেহেতু অ্যাপটি বিনামূল্যের তাই অ্যাড দেখার বিড়ম্বনাটুকু সহ্য করতে হবে আপনাকে। তবে চাইলেই Get Pro অপশন থেকে টাকা দিয়ে অ্যাড ফ্রি ফিচারটি অ্যাক্টিভ করে নিতে পারেন।

আর্টিকেলটি লেখা হলো মূলত যারা প্রোগ্রামিং শিখতে চায়, কিন্তু চিন্তা করে ‘আমার তো কম্পিউটার নেই!’ তাদের কথা ভেবে। তবে যারা ইতিমধ্যই প্রোগ্রামিং করা শিখে গেছেন, তারাও ইচ্ছে করলে অ্যাপটির Algo Yo অপশনটি থেকে সমস্যা সমাধান করে নিজেদের দক্ষতা বাড়াতে পারেন! অ্যান্ড্রয়েডে প্রোগ্রামিং শেখা শুরু হোক আজই! প্রোগ্রামিং হোক আনন্দময়!!