নরসিংদী-৩ শিবপুর আসনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পূন:বিচনায় দাবী তৃণমূল নেতাকর্মীর

নিজস্ব প্রতিবেদক


নরসিংদী-৩ (শিবপুর) আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন পূন:বিচনায় নিয়ে বর্তমান সাংসদ সিরাজুল ইসলাম মোল্লাকে মনোনয়ন দেওয়ার দাবী তৃর্ণমূলের নেতৃবৃন্দ ও এলাকাবাসীর। দলীয় প্রধান বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে এলাকার সার্বিক অবস্থা বিচার-বিশ্লেষন করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে প্রার্থী পরিবর্তন করার জোর দাবী জানানো হয়।
ক্ষমতাশীন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ঘোষণার পর থেকে শিবপুর উপজেলার আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মাঝে অসন্তোষ ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। তারা দলীয় মনোনয়ন মেনে নিতে না পেরে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। এর আগে দলের দেওয়া মনোনয়ন প্রাপ্তদের তালিকা অনুযায়ী বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার সিরাজুল ইসলাম মোল্লা নাম ছাপা হয়। কিন্তু ২৫ নভেম্বর দলীয় মনোনয়নের চুড়ান্ত চিঠি দেওয়া হয় জহিরুল হক মোহনকে। যা বিস্মিত করে শিবপুরের তৃর্ণমূলের নেতাকর্মী ও সাধারণ এলাকাবাসীকে। সিরাজুল ইসলাম মোল্লার মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়া তার সমর্থক ও দলীয় অনুসারীরা পুরো উপজেলা জুড়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মী ও সমর্থকদের শান্ত করতে ২৬ নভেম্বর সিরাজুল ইসলাম এমপি শিবপুরে আসেন এবং তাদের সাথে আলোচনায় বসে। এসময় নেতাকর্মীরা দলীয় প্রধানের কাছে মনোনয়ন পুন:বিবেচনার আহবান জানালেও কোন সুফল না আসায় ২৮ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষদিন সিরাজুল ইসলাম মোল্লার সমর্থনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েক হাজার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা তার কার্যালয়ে সমবেত হয়। এসময় পুরো এলাকা জনস্্েরাতে পরিনিত হয়। তাৎক্ষনিক ভাবে উপস্থিত নেতাকর্মীরা সমাবেশ করে সিরাজুল ইসলাম মোল্লা এমপিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করার আহবান জানান। সেই সাথে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রধান জননেত্রী শেখ হাসিনাকে নরসিংদী-৩ সংসদীয় আসনে মনোনয়ন পূন:বিবেচনায় এসে সিরাজুল ইসলাম মোল্লাকে মনোনয়ন দেওয়ার জোড় দাবী জানান।
এদিকে সিরাজুল ইসলাম মোল্লা তার সমর্থক ও অনুসারিদের অনুরোধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নিজের মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। গত ২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই এর দিনে সিরাজুল ইসলাম মোল্লার সমর্থনে কয়েক’শ নেতাকর্মী নরসিংদী জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটানিং অফিসার অফিসারের কার্যালয়ে জড়ো হয়। এসময় নেতাকর্মীরা তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, নরসিংদী-৩ (শিবপুর) আসনটিতে নৌকার জয় ছিনিয়ে আনতে সিরাজুল ইসলাম মোল্লার বিকল্প নেই। এ আসনে বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের প্রার্থী হচ্ছে নরসিংদী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও নরসিংদী সদর উপজেলা থেকে পর পর দুইবার নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মন্জুর এলাহী। শুধু সদর নয় জেলায়ই রয়েছে তার ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা। তাছাড়া শিবপুর মনজুর এলাহীর পৈত্রিক নিবাস হওয়ায় এ উপজেলায় তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। মনজুর এলাহীর জনপ্রিয়তার কাছে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রাপ্ত জহিরুল হক মোহনের গ্রহণ যোগ্য অত্যন্ত ক্ষীন। তাছাড়া মোহন এমপি থাকা অবস্থায় তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা টেন্ডার সিন্ডিকেট, নিয়োগ বাণিজ্যে নামে এলাকার সাধারণ জনগনের কাছ থেকে যেভাবে অবৈধ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে তাতে বেশ বদনামের ভাগি হয় মোহন। যা এখনও এলাকাবাসীর মুখে মুখে। অথচ সিরাজুল ইসলাম মোল্লা এমপি থাকা অবস্থায় এ বিষয়গুলো শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রন করেছেন। পুরো উপজেলায় করেছেন ব্যাপক উন্নয়ন। বর্তমান সরকার বিগত ১০ বছরের যে উন্নয়ন সারা দেশে করে গেছেন সিরাজুল ইসলাম মোল্লার সময়ে তা থেকে বঞ্চিত হয়নি শিবপুরবাসী। অথচ জহিরুল হক মোহন এমপি থাকা অবস্থায় তার সিকি ভাগও উন্নয়ন হয়নি শিবপুর উপজেলায়। শিবপুরবাসী মনে করে মান্নান ভূঁইয়ার পর যদি শিবপুরের উন্নয়ন হয়ে থাকে তবে তা হয়েছে সিরাজুল ইসলাম মোল্লার হাত ধরেই। তাই শিবপুরবাসী উন্নয়নের এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে সিরাজুল ইসলাম মোল্লাকে আবারও এমপি হিসেবে দেখতে চায়। শিবপুরের সাধারণ ভোটারও এলাকার উন্নয়ন ধরে রাখতে আবারও সিরাজুল ইসলাম মোল্লার পক্ষেই তাদের রায় দিবেন। সেক্ষেত্রের শিবপুরে নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আসতে সিরাজুল ইসলাম মোল্লার বিকল্প নেই বলে নেতাকর্মীরা জানান। তাই তারা বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মিনতি জানান আবারও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও এলাকার সাধারণ জনগনের মতামত গ্রহণ সাপেক্ষে মনোনয়নের বিষয়টি পূন:বিবেচনায় এনে সিরাজুল ইসলাম এমপিকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানান।