মনোহরদীতে আদম ব্যবসায়ীর খপ্পরে পড়ে নিঃস্ব তিন পরিবার

১৪ জুলাই ২০২০, ০২:৩২ পিএম | আপডেট: ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৩:০৬ পিএম


মনোহরদীতে আদম ব্যবসায়ীর খপ্পরে পড়ে নিঃস্ব তিন পরিবার

মনোহরদী প্রতিনিধি:
নরসিংদীর মনোহরদীতে কাজল মিয়া নামে এক আদম ব্যবসায়ীর প্রতারণার খপ্পরে পড়ে নিঃস্ব হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে তিন পরিবার। সহজ, সরল গরীব পরিবাগুলোর কাছ থেকে প্রায় আট লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে ওই আদম ব্যবসায়ী কাজল মিয়ার বিরুদ্ধে।

কাজল মনোহরদী উপজেলার কাচিকাটা ইউনিয়নের রুদ্রদী গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে। টাকা উদ্ধার এবং প্রতারণার বিচার চেয়ে গত সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।


অভিযোগে জানা যায়, একই উপজেলার খিদিরপুর ইউনিয়নের পীরপুর গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের ছেলে উসমান গণি, ইমাম উদ্দিনের ছেলে সিরাজ উদ্দিন এবং চাঁন মিয়ার ছেলে তাইজ উদ্দিন ২০১২ সালে লিবিয়া যাওয়ার আশায় আদম ব্যবসায়ী কাজল মিয়ার হাতে টাকা তুলে দেন। ধারদেনা, ভিটেমাটি এবং গরু বিক্রির টাকা উপার্জনের আশায় বিদেশ যাওয়ার জন্য প্রতিজন দুই লাখ ৬৩ হাজার টাকা করে দেন। প্রথমে একলাখ টাকা দেওয়ার পর তিনজনকে লিবিয়ার জাল ভিসা ধরিয়ে দেয়া হয়।


কিছুদিন পর বাকী আরো এক লাখ ৬৩ হাজার টাকা করে দেওয়ার পর তাদেরকে বিদেশ যাওয়ার তারিখ দেন। নির্ধারিত দিনে আদম ব্যবসায়ী কাজলের দেওয়া অফিসের ঠিকানায় গিয়ে তা বন্ধ পাওয়া যায়। এরপরই তারা প্রতারণার বিষয়টি বুঝতে পেরে ফেরত আসেন এবং পরীক্ষা করে জানতে পারেন ওই ভিসা জাল। পরদিন ভুক্তভোগীরা কাজলের বাড়ীতে উপস্থিত হলে টাকা ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়। কিন্তু দেই দিচ্ছি বলে টালবাহানা করতে থাকেন কাজল। পরবর্তীতে স্থানীয়ভাবে কয়েকবার দেন দরবার হলেও কোন টাকা পয়সা ফেরত দেননি। এখন তিনি তাদের সাথে দূর্ব্যবহার করছেন।


এ বিষয়ে জানতে কাজলের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘তারা আমার কাছে কোন টাকা পাবে না। তাদের টাকা ফেরত দিয়েছি।’


মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাফিয়া আক্তার শিমু বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্তের জন্য কাচিকাটা ইউপি চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। অভিযোগের সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’