জানালার পাশে দাড়ানোকে কেন্দ্র করে ট্রেন যাত্রীর কিলঘুষিতে অপর যাত্রী নিহত

০৬ জুন ২০২৪, ১২:৩৭ পিএম | আপডেট: ২০ জুন ২০২৪, ০৬:২৭ এএম


জানালার পাশে দাড়ানোকে কেন্দ্র করে ট্রেন যাত্রীর কিলঘুষিতে অপর যাত্রী নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকাগামী মেইল ট্রেনে জানালার পাশের সিটে বসা ও দাড়ানো নিয়ে দুই যাত্রীর হাতাহাতির ঘটনায় ঝুমুর কান্তি বাউল নামের এক যাত্রী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেন দাড়ানো অবস্থায় এই ঘটনা ঘটে।

নিহত ঝুমুর কান্তি বাউল (৪২) নরসিংদী পৌর এলাকার বীরপুর মহল্লার প্রত্যুত কুমার বাউলের ছেলে। অপরদিকে অভিযুক্ত যাত্রীর নাম মনজুর মিয়া (৫৫)। তিনি চট্রগ্রামের সীতাকুন্ডের বাসিন্দা।

ট্রেনের যাত্রীরা জানান, চট্রগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ঢাকা অভিমুখী ঢাকা মেইল এক্সপ্রেস ট্রেনটি নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছানোর পর ঝুমুর কান্তি বাউল নামের এক যাত্রী ট্রেনের শেষ বগিতে ওঠেন এবং একটি জানালার পাশে দাড়াতে চান। এসময় জানালার পাশের সিটে বসা মনজুর মিয়ার সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে মনজুর মিয়া ঝুমুর কান্তি বাউলকে লাথি এবং ঘুষি দিলে তিনি অজ্ঞান হয়ে মেঝেতে লুটিয়ে পড়েন। এসময় বগির অন্যান্য যাত্রীরা অজ্ঞান হওয়া ঝুমুর কান্তি বাউলকে নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে নামিয়ে দিলে ট্রেন ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। পরে  স্টেশন কর্তৃপক্ষ অজ্ঞান হওয়া যাত্রী ঝুমুর কান্তি বাউলকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বায়েজিদ রাব্বি নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, তুচ্ছ একটা বিষয় নিয়ে এই ঘটনা ঘটেছে। আমরা কোনোকিছু বুঝে ওঠার আগেই ঘটনাটি ঘটে যায়। মারা যাওয়া ওই যাত্রী এই ট্রেনে নিয়মিত নরসিংদী থেকে ঢাকা যাতায়াত করতেন।

নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (এসআই) মো. শহিদুল্লাহ বলেন, অভিযুক্ত ব্যক্তিকে কমলাপুর রেলওয়ে পুলিশ আটক করেছে। স্বজনরা হাসপাতাল থেকে নিহতের মরদেহ নিজ বাড়িতে নিয়ে গেছেন। পুলিশ নিহতের বাড়িতে পৌঁছে ময়নাতদন্তসহ অন্যান্য আইনী প্রক্রিয়া চালাচ্ছেন।



এই বিভাগের আরও