নরসিংদীতে ইউপি মেম্বারকে চাঁদা না দেয়ায় দোকান নির্মাণে বাধা, মারপিট

০২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২২ পিএম | আপডেট: ২৬ মে ২০২০, ০১:০৭ পিএম


নরসিংদীতে ইউপি মেম্বারকে চাঁদা না দেয়ায় দোকান নির্মাণে বাধা, মারপিট
অভিযুক্ত ইউপি মেম্বার মামুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নরসিংদীতে ইউপি মেম্বারকে চাঁদা না দেয়ায় দোকান নির্মাণে বাধা ও শফিকুল ইসলাম ওরফে মাসুম (৩০) নামে এক দোকান মালিককে মারপিট করে আহত করার অভিযোগ উঠেছে। পরে মেম্বার মামুন কর্তৃক দোকান মালিককে প্রকাশ্যে মারধরের ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ২৭ নভেম্বর বুধবার নরসিংদী সদর উপজেলার চিনিশপুর ইউনিয়নের গাবতলী মাদ্রাসার সামনে এ ঘটনা ঘটেছে।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত সদর উপজেলার চিনিশপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও স্থানীয় রুস্তম আলীর ছেলে মামুন মিয়াসহ তার সহযোগী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে নরসিংদী সদর মডেল থানায় চাঁদাবাজির মামলা করেছেন ভুক্তভোগী শফিকুল মাসুম।


মামলার বিবরণে জানা গেছে, গাবতলী মাদ্রাসার বিপরীত পাশে পুরানপাড়া পুরানপাড়া মৌজায় নিজেদের জমিতে দোকান ঘর নির্মাণ করছিলেন শফিকুল ইসলাম ওরফে মাসুম এবং তার নিয়োজিত রাজমিস্ত্রীরা। এসময় ইউপি মেম্বার মামুন (৩৭) তার সহযোগী একই এলাকার তোরাব আলীর ছেলে রহুল আমিন (২০), আ: সাত্তারের ছেলে আল আমিন (২০), সিরাজ মিয়ার ছেলে দেলোয়ার হোসেন (২২) ও মহসিন (২১) পিতা অজ্ঞাতরাসহ আরও ৫/৬ জন দোকান নির্মাণে বাধা দেয়। এসময় তারা এর আগে দাবি করা ৫০ হাজার টাকা চাঁদা পরিশোধের দাবি জানায়। এসময় দোকান মালিক মাসুম চাঁদা দিতে রাজি না হলে তারা লাঠিসোটা দিয়ে তাকে মারপিট করে আহত করে। এসময় মাসুমের স্ত্রীর বড় ভাই সাজেদুল আরেফিন ওরফে কাবির (৪২) তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাকেও মারধর করা হয়। এসময় হামলাকারীরা ১০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়াসহ নির্মাণাধীন দেয়াল ভেঙ্গে ১ লাখ টাকার ক্ষতি করে। পরে তাদের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করে চলে যায়।


এ ঘটনায় ভুক্তভোগী দোকান মালিক শফিকুল ইসলাম ওরফে মাসুম বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং আরও ৫/৬ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে নরসিংদী সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।


ভুক্তভোগী দোকান মালিক শফিকুল ইসলাম ওরফে মাসুম বলেন, মামলা দায়ের করার পর প্রধান আসামী মেম্বার মামুন প্রভাব বিস্তার করে গ্রেফতার না হয়েই আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে হয়ে গেছে। জামিনে মুক্তি পেয়ে উল্টো আমাদের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।


এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে অভিযুক্ত মেম্বার চরথাপ্পড় মারার কথা স্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে পেপারে লিখে দেন। এতে আমার প্রচার হবে।