পলাশে ছাত্রী নিজেই বন্ধ করলো নিজের বাল্য বিয়ে

২৮ জুলাই ২০১৯, ০৬:৫২ পিএম | আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৯:৫৯ এএম


পলাশে ছাত্রী নিজেই বন্ধ করলো নিজের বাল্য বিয়ে

পলাশ প্রতিনিধি ॥
নরসিংদীর পলাশে নিজের বাল্য বিয়ে নিজেই বন্ধ করলো ৯ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রী। আজ রোববার (২৮ জুলাই) দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ দেওড়া গ্রামে এ বাল্য বিয়ে বন্ধ করা হয়।


উপজেলার পারুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণিতে পড়ুয়া কাকলী আক্তার (১৪) নিজের বাল্য বিয়ের বিষয়টি ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল আলীকে জানালে তিনি সাথে সাথে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা ইয়াসমিনকে বিষয়টি অবগত করেন। পরে নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেলো শিক্ষার্থী কাকলী আক্তার।


উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের অফিস সহকারী আব্দুল বাছেদ জানান, উপজেলার চরসিন্দুর ইউনিয়নের দক্ষিণ দেওড়া গ্রামের কাজল মিয়ার স্কুল পড়–য়া মেয়ে কাকলী আক্তারকে অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে দেওয়া হচ্ছিল। এমন খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তারকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই। পরে ওই শিক্ষার্থীর বাল্য বিয়ে বন্ধ করা হয়। এসময় শিক্ষার্থীর পরিবার অঙ্গীকার করেন যে, মেয়ের প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত কাকলী আক্তারকে লেখাপড়া শেখাবেন। শিক্ষার্থী কাকলী আক্তারকে রোববার পার্শ্ববর্তী গ্রামে বিয়ে দেওয়ার কথা ছিল।