সঠিক উপায় অবলম্বন করলেই করোনা মহামারি দ্রুতই কাটিয়ে ওঠা যেতে পারে: ডব্লিউএইচও

১২ অক্টোবর ২০২০, ০৮:০৯ পিএম | আপডেট: ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৩০ পিএম


সঠিক উপায় অবলম্বন করলেই করোনা মহামারি দ্রুতই কাটিয়ে ওঠা যেতে পারে: ডব্লিউএইচও
ছবি: সংগৃহীত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক টেড্রোস আধানম গেব্রেইয়েসুস বলেছেন, দেশগুলো যদি সঠিক উপায় অবলম্বন করে তাহলেই কেবল করোনাভাইরাস মহামারি দ্রুতই কাটিয়ে ওঠা যেতে পারে। যদি সঠিক কৌশল প্রয়োগ করা না হয়, তাহলে এই মহামারি দীর্ঘ সময় পর্যন্ত থাকতে পারে বলেও সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি।

ব্রিটিশ দৈনিক ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের এক অনলাইন সম্মেলনে অংশ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান এই সতর্কবার্তা দিয়েছেন। আফ্রিকা বিষয়ক ওই সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেন, আমাদের হাতে যে কৌশল রয়েছে তা যদি যথাযথভাবে ব্যবহার করা হয়, তাহলে আমরা এই মহামারিকে দ্রুত শেষ করতে পারবো।

চলতি বছরের শেষের দিকে অথবা ২০২১ সালের শুরুতে করোনাভাইরাসের যেকোনও একটি ভ্যাকসিন আসতে পারে বলে প্রত্যাশা করেছেন টেড্রোস আধানম। তিনি বলেন, আমাদের হাতে যেসব সরঞ্জাম আছে; যদি আমরা সেসবের ব্যবহার না করি, তাহলে এটি দীর্ঘ সময় ধরে আমাদের সঙ্গে থেকে যেতে পারে। এটা আমাদের সঙ্গে খুব দীর্ঘসময় ধরে থাকতে পারে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের উৎপত্তি হওয়ার পর বিশ্বের দুই শতাধিক দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়েছে। বিশ্বজুড়ে এতে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১০ লাখ ৮২ হাজার ২৫৪ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ৩ কোটি ৭৮ লাখের বেশি। বিশ্বজুড়ে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের প্রকোপ চললেও বিজ্ঞানীরা এখন পর্যন্ত এর চূড়ান্ত কোনও ভ্যাকসিন কিংবা ওষুধ আবিষ্কার করতে পারেননি। তবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শতাধিক ভ্যাকসিন তৈরির প্রকল্প চলমান রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের উদ্যোগ ‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস গ্লোবাল অ্যাকসেস (কোভ্যাক্স)’ ফ্যাসিলিটির পাইপলাইনে ৯টি পরীক্ষামূলক ভ্যাকসিন রয়েছে। আগামী বছরের শেষের দিকে বিশ্বজুড়ে ২০০ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন বিতরণের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে কোভ্যাক্স। যদিও এই ভ্যাকসিন সংগ্রহের এই জোটের এখনও পর্যাপ্ত তহবিলের জোগান হয়নি।


বিভাগ : বিশ্ব


এই বিভাগের আরও