কাল বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ: মারাত্মক ক্ষতি থেকে বাঁচতে খালি চোখে তাকানো বারণ

২০ জুন ২০২০, ০৯:১৯ পিএম | আপডেট: ১১ জুলাই ২০২০, ০৮:১১ পিএম


কাল বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ: মারাত্মক ক্ষতি থেকে বাঁচতে খালি চোখে তাকানো বারণ
ফাইল ছবি

তথ্যপ্রযুিক্ত ডেস্ক:

আগামীকাল রোববার (২১ জুন) পৃথিবীতে বলয় সূর্যগ্রহণ হবে। এদিন ভারতের যোশীমঠ শহর থেকে সর্বোচ্চ বলয় সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। তবে বাংলাদেশ থেকে এই বলয় সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে না, আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। আংশিক গ্রহণ শুরু হবে বেলা ১১টা ২৩ মিনিট ৩ সেকেন্ডে। তবে খালি চোখে সূর্যের দিকে তাকানো যাবে না। এতে চোখের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। পাশাপাশি টেলিস্কোপ, বাইনোকুলার বা ক্যামেরা সরাসরি সূর্যের দিকে তাক করে গ্রহণ পর্যবেক্ষণ বা ছবি তুললেও চোখের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। সোলার ফিল্টার সংযুক্ত করে এই গ্রহণ দেখা ও ছবি তোলা যাবে।

শনিবার (২০ জুন) বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের জলবায়ু মহাশাখা এবং জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

এর আগে বাংলাদেশে সূর্যগ্রহণ দেখা গিয়েছিল গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর। অল্প সময়ের বিরতিতে এবার গ্রহণ হলেও এর পরেরবারের জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২০২২ সালের ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত।

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর জানিয়েছে, ২১ জুন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বলয় সূর্যগ্রহণ ঘটবে। কঙ্গো, লাইবেরিয়া, ইথিওপিয়া, পাকিস্তান, ভারত ও চীন থেকে এই গ্রহণ দেখা যাবে। বাংলাদেশ থেকে এই বলয় সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে না। আকাশ মেঘমুক্ত থাকলে বলয় গ্রহণটি বাংলাদেশ থেকে আংশিক সূর্যগ্রহণ হিসেবে দেখা যাবে, ২০১৯ সালের ২৬ ডিসেম্বর যেমনটি ঘটেছিল। রোববার বেলা ১১টা ২৩ মিনিটে গ্রহণ শুরু হবে, সর্বোচ্চ গ্রহণ হবে দুপুর ১টা ১২ মিনিটে এবং গ্রহণ শেষ হবে বেলা ২টা ১২ মিনিটে।

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, 'খালি চোখে সূর্যের দিকে তাকাবেন না। এতে চোখের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। উপযুক্ত সোলার ফিল্টার বা ১৩ গ্রেডের ওয়েল্ডিং গ্লাস ব্যবহার করে এই গ্রহণ পর্যবেক্ষণ করা যাবে। টেলিস্কোপ, বাইনোকুলার বা ক্যামেরা সরাসরি সূর্যের দিকে তাক করে গ্রহণ পর্যবেক্ষণ বা ছবি তোলা চোখের মারাত্মক ক্ষতির কারণ হবে। সোলার ফিল্টার সংযুক্ত করে এই গ্রহণ দেখা যাবে ও ছবি তোলা যাবে'।

এ বিষয়ে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের মহাপরিচালক মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী জানান, করোনা সংক্রমণের কারণে এবার জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরে কোনো পর্যবেক্ষণ ক্যাম্প আয়োজন করা হবে না। তবে এ প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য সীমিত পরিসরে গ্রহণ পর্যবেক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। ঢাকা থেকে পরবর্তী সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে ২০২২ সালের ২৫ অক্টোবর।

আবহাওয়া অধিদফতরের জলবায়ু মহাশাখা জানিয়েছে, ২১ জুন সকাল ৯টা ৪৬ মিনিট ৬ সেকেন্ডে সূর্যগ্রহণ শুরু হবে কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের ইম্পফোন্ডো শহরে। কেন্দ্রীয় গ্রহণ শুরু হবে কঙ্গোর প্রজাতন্ত্রের বোমা শহরে বেলা ১০টা ৪৮ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে। সর্বোচ্চ গ্রহণ হবে ওইদিন ভারতের যোশীমঠ শহরে বেলা ১২টা ৪০ মিনিট ৬ সেকেন্ডে। কেন্দ্রীয় গ্রহণ শেষ হবে ফিলিপাইনের সামার শহরে দুপুর ২টা ৩১ মিনিট ৪২ সেকেন্ডে এবং গ্রহণ শেষ হবে ফিলিপাইনের মিন্দানাও শহরে বেলা ৩টা ৩৪ মিনিটে।

আকাশ পরিষ্কার থাকলে ওইদিন বাংলাদেশে আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। এই গ্রহণ ঢাকা বিভাগে বেলা ১১টা ২৩ মিনিট ৩ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৫২ মিনিট ৩ সেকেন্ডে শেষ, ময়মনসিংহে ১১টা ২৩ মিনিট ২ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৫১ মিনিট ২ সেকেন্ডে শেষ, চট্টগ্রামে ১১টা ২৮ মিনিট ১২ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৫৫ মিনিট ১৩ সেকেন্ডে শেষ, সিলেটে ১১টা ২৭ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৫৪ মিনিট ৫২ সেকেন্ডে শেষ, খুলনায় ১১টা ২০ মিনিট ১৯ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৫০ মিনিট ৯ সেকেন্ডে শেষ, বরিশালে ১১টা ২৩ মিনিট ৫ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৫২ মিনিট ১ সেকেন্ডে শেষ, রাজশাহীতে ১১টা ১৭ মিনিট ১৪ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৪৭ মিনিট ৫৫ সেকেন্ডে শেষ এবং রংপুরে বেলা ১১টা ১৭ মিনিট ৫৯ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ২টা ৪৮ মিনিট ৩৩ সেকেন্ডে শেষ হবে।

উল্লেখ্য, ২১ জুন সূর্য কর্কটক্রান্তি রেখায় খাড়াভাবে কিরণ দেয়। ফলে এ দিনে উত্তর গোলার্ধে সবচেয়ে বড় দিন ও ছোট রাত এবং দক্ষিণ গোলার্ধে সবচেয়ে ছোট দিন ও বড় রাত।