ইফতারিতে যা খেয়ে কমাতে পারেন গ্যাসের সমস্যা

০৭ মে ২০১৯, ০৪:৩৫ পিএম | আপডেট: ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৫৩ পিএম


ইফতারিতে যা খেয়ে কমাতে পারেন গ্যাসের সমস্যা

হেলথ ডেস্ক:

রোজার মাস এলে আমাদের খাবার খাওয়ার অভ্যাসে অনেকটা পরিবর্তন আসে হঠাৎ করে এসব পরিবর্তনের ফলে অনেকেই ভোগেন গ্যাসের সমস্যায় দিনব্যাপী পানি পান করায়, আঁশজাতীয় খাবার কম হওয়া নিয়ম মেনে ইফতার গ্রহণ না করলে পেটে গ্যাসের সমস্যা বেড়ে যায়।

জন্য চিকিৎসকরা বলেন, যেহেতু গ্যাস হয় সেহেতু রোজার মাসে ভাজা-পোড়া না খাওয়াই ভাল। এরপরও গ্যাস সমস্যার সহজ কিছু সমাধান রয়েছে যেমন ইফতারিতে দই-চিড়া, ফল, কাঁচা ছোলা, খিচুড়ির মাত্রা বাড়িয়ে দিতে হবে ইফতারি পরপরই প্রচুর পানি পান না করে ৪০ থেকে ৬০ মিনিট পরে পানি পান করা উচিত এতে করে পেটের এসিড গলায় উঠে আসার সম্ভাবনা কমে এছাড়া রান্নার সময় তরকারিতে তেলের পরিমাণ কমিয়ে দিতে হবে

গ্যাস সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ইফতারিতে যেসব খাবার খেতে পারেন---


দই: দইয়ে থাকে ল্যাকটোব্যাকিলাস, এসিডোফিলাস ও বিফিডাসের মতো নানা উপকারী ব্যাকটেরিয়া। এজন্য দই খেলে হজম ভালো হয়, গ্যাসও কমে। খাবারের পর টকদই খাওয়া বেশ কার্যকরী হয়। পেট ঠান্ডা রাখতে খেতে পারেন দই চিড়া।

শসা:  রসালে সবজি শসায় রয়েছে প্রচুর সিলিকা ও ভিটামিন সি। রয়েছে উচ্চমাত্রায় পানি ও নিম্নমাত্রার ক্যালরিযুক্ত উপাদান। শসা চিবিয়ে খেলে তা হজমে ভূমিকা রাখে। শরীরে পানি বাড়ায় আর কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

তরমুজ: তরমুজে থাকে ৯২ শতাংশ পানি। রোজায় যেহেতু পানি পান করা হয় না তাই ইফতারিতে তরমুজ খাওয়া ভাল। এতে থাকা পটাশিয়াম গ্যাস নিয়ন্ত্রণে রাখে।

কলা: পাকা কলায় যে পটাশিয়াম থাকে, তাতে শরীরের সোডিয়াম ও পটাশিয়ামের ভারসাম্য বজায় থাকে। কলা হজমেও সাহায্য করে। দেহ থেকে দূষিত পদার্থ দূর করে। তাই মুড়ির সাথে কলা খেয়ে নিন ইফতারিতে।

আনারস:  ব্রোমেলাইন নামের কার্যকর পাচক রসসহ আনারসে আছে ৮৫ শতাংশ পানি। আনারস পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার রাখে।

লেবু-পানি: পানি পানের সুফলের কথা সবারই জানা। অনেকেই হয়তো জানেন না যে, হালকা গরম পানির সঙ্গে লেবুর রস যুক্ত করলে তা প্রাকৃতিক মলবর্ধক হিসেবে কাজ করে। এটি পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার রাখতেও কাজ করে। তাই ইফতারিতে পান করতে পারেন ঠাণ্ডা এক গ্লাস লেবু পানি।


বিভাগ : জীবনযাপন