পলাশে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ভাংচুর, লুটপাট

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:২৮ পিএম | আপডেট: ১২ জুন ২০২৪, ১০:৩২ পিএম


পলাশে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ভাংচুর, লুটপাট
লুটপাটের সময়কার ছবি ( সংগৃহীত )

আল-আমিন মিয়া,পলাশ:
নরসিংদীর পলাশে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে বসত বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট করে দেড় বছরের শিশুসহ এক গৃহবধূকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় হামলাকারীরা বসত ঘর ভাংচুর করে স্বর্ণালঙ্কার, নগদ টাকা ও ঘরে থাকা বিভিন্ন ফার্ণিচার লুটে নিয়েছে বলে জানায় ভুক্তভোগীরা। সোমবার সকালে উপজেলার চরসিন্দুর ইউনিয়নের কাউয়াদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে ।

 

হামলাকারীদের বাধা দিতে গিয়ে মারধরের শিকার হন যমুনা রানী পাল নামে এক গৃহবধূ। ছুড়ে মাটিতে ফেলা হয় বিকি চন্দ্র দে নামে দেড় বছরের এক শিশুকে। আহতরা পলাশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি।

 

ভুক্তভোগি গৃহবধূর শ্বশুর সতিশ চন্দ্র দে বলেন, আমাদের পৈতৃক বাড়ির ভিটা নিয়ে আমার বোন শিউলী রানীর সাথে পূর্ববিরোধ চলছে। বিরোধটি নিয়ে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে।সোমবার সকালে আমার ছেলের বউ যমুনা রানী পাল তার দেড় বছরের শিশুটিকে নিয়ে বাড়িতে একা ছিল। সে সুযোগে শিউলী রানীর নেতৃত্বে পূর্ববিরোধের জের ধরে মোহাম্মদ আলী, দিপু মিয়া, আবু দে ও অনিক ধর সহ অজ্ঞাতনামা আরও আট থেকে দশজন সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর করে প্রায় ৮ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, নগদ এক লাখ আশি হাজার টাকা ও ঘরে থাকা বিভিন্ন ফার্ণিচার লুট করে নিয়ে যায়। এসময় তাদেরকে বাধা দিতে গেলে পুত্র বধূ যমুনা রানী পালকে ব্যাপক মারধর করে অচেতন করা হয়। শুধু তাই নয়, দেড় বছর বয়সী নাতি বিকি চন্দ্র দে’কেও ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হয় । খবর পেয়ে আমার ছেলে সবুজ চন্দ্র দে গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করে পলাশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করে।

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিউলী রানীর মুঠোফোনে একাধিক বার কল দিলেও তাকে পাওয়া যায়নি। পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান, লুটপাট ও মারধরের বিষয়টি অবগত আমরা। ঘটনাস্থল পুলিশ পরিদর্শন করেছে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।



এই বিভাগের আরও