বাংলাদেশি পোশাক আমদানি বাড়ায় তামিলনাড়ুতে উদ্বেগ

০২ জুলাই ২০১৯, ০২:৪৫ পিএম | আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ০১:১৮ পিএম


বাংলাদেশি পোশাক আমদানি বাড়ায় তামিলনাড়ুতে উদ্বেগ

বিদেশ ডেস্ক:

ভারতের তামিলনাড়ুতে বাড়ছে বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক আমদানি। এতে সেখানকার বস্ত্র বিষয়ক প্রতিষ্ঠানগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তারা এ বিষয়ে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এমন পোশাকের সরবরাহ চুক্তি ভারতের খুচরা বিক্রেতা ও ব্রান্ডগুলোর সঙ্গে করতে সরকারের সহযোগিতার দাবি তুলেছে।

এ খবর দিয়েছে অনলাইন দ্য ইকোনমিক টাইমস।

এমন দাবিতে তামিলনাড়ুর কয়েম্বাটোর ও তিরুপুরের সংশ্লিষ্ট পোশাক প্রস্তুতকারকরা এক হয়েছেন। তাদের সংগঠন ইন্ডিয়ান টেক্সপ্রিনিউরস ফেডারেশনে রয়েছে কমপক্ষে ৫৬০টি বস্ত্র শিল্প সদস্য। এই সংগঠনটির সদস্যরা সব মিলে ৪০ হাজার কোটি রুপির ব্যবসা করেন। জুনের শুরুতে তারা বস্ত্রমন্ত্রী স্মৃতি ইরানির কাছে এ বিষয়ে লিখিতভাবে হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন।

কোম্পানিগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছে, তৈরি পোশাক ক্রমবর্ধমান হারে সেখানে আমদানি করা হচ্ছে। এতে স্থানীয় বাজারে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। তারা সামান্য উষ্ণ রপ্তানি প্রক্রিয়ায় লড়াই করছেন। স্মৃতি ইরানিকে তারা চিঠিতে লিখেছেন, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা  অথবা ইন্দোনেশিয়া থেকে যেসব পণ্য কেনা হয়, পশ্চিমা ও ভারতীয় ব্রান্ডের জন্য তার চেয়ে ভাল উৎস হতে পারে ভারতের এসব কোম্পানি। 

ওই চিঠি দেখতে পেয়েছে ইকোনমিক টাইমস। তাতে ইন্ডিয়ান টেক্সপ্রিনিউরস ফেডারেশন যে ডাটা দিয়েছে তাতে বলা হয়েছে, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা হয়েছে ১০৭ কোটি ডলার বা ৭৫০০ কোটি রুপির তৈরি পোশাক। এই অর্থবছরে বৃদ্ধি পেয়েছে শতকরা ৫৩ ভাগ। ফলে স্থানীয় উদ্যোক্তাদের আশঙ্কা, বাংলাদেশের মতো প্রতিবেশীরা তাদেরকে ভারতের বাজার থেকে আউট করে দিতে পারে। কারণ, প্রতিবেশী দেশগুলোতে উৎপাদন খরচ কম এবং তাদের রয়েছে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি। এর অধীনে তারা ভারতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পায়। রিপোর্টে বলা হয়েছে, এক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে যে চ্যালেঞ্জ আসছে তাতে আন্তর্জাতিক বাজারে ভারত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। 


বিভাগ : বিশ্ব


Regent