হিলি স্থলবন্দরে কমতে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম

০২ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৫১ পিএম | আপডেট: ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ১১:৫৮ পিএম


হিলি স্থলবন্দরে কমতে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক:

২৯ সেপ্টেম্বর ভারত সরকার বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা দেওয়ার পরই দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে লাগামহীনভাবে। হিলি স্থলবন্দর এলাকার আড়তগুলোতে পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছিল আড়তদাররা। এ প্রেক্ষিতে সম্প্রতি পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক রাখতে দেশের বিভিন্ন স্থানে মজুদদার ও আড়তদারদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা শুরু করেছে প্রশাসন। এরই মধ্যে এই প্রভাব পড়েছে হিলি স্থলবন্দরের আড়তগুলোতে। কমতে শুরু করেছে আমদানিকৃত পেঁয়াজের দাম।

গত রবি থেকে সোমবার যে পেঁয়াজ বন্দরের পাইকারি ও খোলা বাজারে বিক্রি হয়েছে ৯০ থেকে ১১০ টাকা দরে। সেই পেঁয়াজ আজ বুধবার (২ অক্টোবর) সকাল থেকে বন্দরের আড়তগুলোতে প্রকারভেদে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা কমে  কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকায়। আর এতে খুশি বিভিন্ন স্থান থেকে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা।

আড়তগুলোতে দাম কমার সাথে সাথে বন্দর এলাকার খোলা বাজারেও কমেছে পেঁয়াজের দাম, স্বস্তি ফিরেছে সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে। কেজিতে কমেছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। তবে বন্দরের আড়তগুলোতে মজুদকৃত পেঁয়াজ বাজারে যদি ছাড়া হয় এবং প্রশাসনের কঠোর নজরদারি বৃদ্ধি করা হয় তাহলে দাম আরো স্বাভাবিক হয়ে আসবে বলে আশাবাদী সাধারণ ক্রেতারা।

হিলি স্থলবন্দরের আড়তদাররা জানান, রপ্তানি বন্ধ ঘোষণার পর পরই বন্দরের বেশির ভাগ আড়তগুলো বন্ধ ছিল, সেই সাথে বেড়েছিল ক্রেতা সমাগম। দুই একটি আড়ত খোলা থাকায় বেশি দামে বিক্রি হয়েছে পেঁয়াজ, তবে সব আড়তগুলো বুধবার খোলা রাখায় পেঁয়াজের দাম কমে এসেছে।

তারা আরো জানান, আমদানিকারকরা আমাদেরকে বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করতে বলেছে, তাই আমরা বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করেছি। আজ তারা কম দামে বিক্রি করতে বলেছে। আমরা তাই কম দামে বিক্রি করতেছি।

 

 


বিভাগ : অর্থনীতি


Regent