কিংবদন্তি অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন হাসপাতালে ভর্তি

১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:০০ পিএম | আপডেট: ১১ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৩২ পিএম


কিংবদন্তি অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন হাসপাতালে ভর্তি

টাইমস বিনোদন ডেস্ক:

ভারতের চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনকে খুব গোপনীয়তা রক্ষা করে গত মঙ্গলবার গভীর রাতে মুম্বাইয়ের নানাবতী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার গভীর রাতে খবরটি জানাজানি হয়ে যায়। অমিতাভ বচ্চন অনেক দিন থেকেই যকৃতের সমস্যায় ভুগছেন।

প্রথমে শোনা যায়, রুটিন চেকআপের জন্য অমিতাভ বচ্চনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তখন চিকিৎসক তাঁকে বিশ্রাম নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। এ কারণেই তিনি হাসপাতালে আছেন। আজ শুক্রবারও তাঁর চেকআপ চলছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চিকিৎসক বলেছেন, আতঙ্কের কিছু নেই, অমিতাভ বচ্চনকে তাড়াতাড়িই ছেড়ে দেওয়া হবে।

এরপর জানা যায়, অমিতাভ বচ্চনের যকৃতের সমস্যা গুরুতর। তাই গত মঙ্গলবার রাত দুইটার সময় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাঁকে হাসপাতালের একটি আলাদা রুমে রাখা হয়েছে। সেই রুমে আইসিইউর সব সুবিধা রয়েছে। সেই রুমে তাঁর পরিবারের সদস্য আর হাসপাতালের নির্ধারিত চিকিৎসক এবং কর্মী ছাড়া কারও প্রবেশের অনুমতি নেই। জয়া বচ্চন, অভিষেক বচ্চন আর ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন হাসপাতালে এসেছেন, তাঁর পাশে থাকছেন।

অমিতাভ বচ্চন সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় আছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার ছিল কড়ওয়া চৌথ। রাতে টুইটারে তিনি ব্লগ লিখেছেন। ভক্তদের কড়ওয়া চৌথের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, হাসপাতালে থাকলেও স্ত্রীর কথা তাঁর বারবার মনে পড়ছে। জয়ার একটি পুরোনো ছবি শেয়ার করে তিনি আরও লিখেছেন, ‘জয়া পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ স্ত্রী।’ আর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন স্বামীর কল্যাণ কামনা করে নির্জলা উপবাস করে ব্রত পালন করেছেন জয়া বচ্চন। এ কারণেই তাঁর হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার বিষয়টি সামনে আসে।

এদিকে বচ্চন পরিবারের ঘনিষ্ঠ সূত্রের কাছ থেকে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানতে পেরেছে, তাঁর যকৃতের সমস্যা নতুন নয়। এই সমস্যার জন্য তিনি প্রায়ই অসুস্থ হয়ে পড়েন। এবারও তা-ই হয়েছে। গত মঙ্গলবার মধ্যরাতে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন অমিতাভ বচ্চন। এ কারণেই তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত নানাবতী হাসপাতাল থেকে এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই জানানো হয়নি।

২০০০ সালে অমিতাভ বচ্চনের যক্ষ্মার চিকিৎসা হয়। তিনি জানতেন না, তারও প্রায় আট বছর আগে থেকে এই রোগ শরীরে বাসা বেঁধেছে। এ ছাড়া ১৯৮২ সালে ‘কুলি’ ছবির শুটিং করতে গিয়ে গুরুতর দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। তারপর তাঁর দেহে একাধিক অস্ত্রোপচার হয়েছে। প্রচুর পরিমাণ রক্ত নিতে হয়। চিকিৎসকদের মতে, ওই সময় কোনো রক্তদাতার কাছ থেকে অমিতাভ বচ্চনের শরীরে হেপাটাইটিস বি-র ভাইরাস প্রবেশ করে। তাই তখন থেকে নিয়মিত চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চলছেন বলিউডের এই মেগাস্টার।

সম্প্রতি অমিতাভ বচ্চন নিজেই জানিয়েছেন, তাঁর যকৃতের মাত্র ২৫ শতাংশ কাজ করছে। আর তার ওপর ভরসা করেই বেঁচে আছেন তিনি।


বিভাগ : বিনোদন


Regent