শিবপুরে বিষ প্রয়োগে পুকুরের কোটি টাকার মাছ নিধনের অভিযোগ

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৪:০৮ পিএম | আপডেট: ০৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১৯ এএম


শিবপুরে বিষ প্রয়োগে পুকুরের কোটি টাকার মাছ নিধনের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নরসিংদীর শিবপুরে পূর্বশত্রুতার জেরে চার একর জায়গায় করা একটি পুকুরে কীটনাশক প্রয়োগ করে কোটি টাকার মাছ নিধনের অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার জয়নগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নাদিম সরকার, তার ভাই শামীম সরকার ও শাহিন সরকারের পুকুরে এই কীটনাশক প্রয়োগ করা হয়।

পুকুর মালিক ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, জয়নগর ইউনিয়নের নৌকাঘাটা এলাকার শাহিন সরকার, শামিম সরকার ও তার ছোট ভাই ইউপি চেয়ারম্যান নাদিম সরকার প্রায় ৫০ লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে একটি পুকুরে মাছের পোনা ছাড়েন। শুক্রবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে পুকুড়ের পূর্ব পাশের রাস্তায় একটি সাদা প্রাইভেটকার দেখতে পান সেখানে দায়িত্বে থাকা দুই কেয়ারটেকার তাজুল ও শওকত। পরে শনিবার সকালে পুকুরে শত শত মরা মাছ ভাসতে দেখা যায়। পুকুরের পাশ থেকে দুটি বিষাক্ত কেমিক্যালের বোতলও পাওয়া যায়। গভীর রাতে দুষ্কৃতিকারীরা পুকুরে বিষাক্ত কেমিক্যাল বা কীটনাশক প্রয়োগ করেছে এমন ধারণা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে পুকুরের কেয়ারটেকার তাজুল ও শওকত বলেন, প্রতিদিনের মতো রাতে আমরা টহল দিচ্ছিলাম। রাত ২টার একটু পর আমরা পুকুরের পশ্চিম পাশে দাঁড়িয়ে পূর্বপাশের রাস্তায় একটি সাদা প্রাইভেটকার দেখি। এটাকে সন্দেহ না করে পাশেই আরও দুই পুকুরের দিকে চলে যাই। পরে সকালে এসে ওই পুকুরে শত শত মরা মাছ ভেসে থাকতে দেখি।

পুকুর মালিকদের একজন শাহিন সরকার জানান, আমরা তিন ভাই মিলে প্রায় পঞ্চাশ লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে এই পুকুরে মাছের চাষ শুরু করি। ৪৮ লাখ টাকার শিং, তেলাপিয়া ও বিভিন্ন কার্প জাতীয় মাছের পোনা ছাড়া হয় পুকুরটিতে। এখন পর্যন্ত একটি মাছও ওঠাতে পারিনি। সকালে মরা মাছই তুলেছি প্রায় চল্লিশ মণ। এতে সব শেষ হয়ে গেল ।

মেজো ভাই শামীম সরকার বলেন, আমরা তিন ভাই মিলে পঞ্চাশ লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে মাছ চাষ শুরু করি। মাছগুলাও বিক্রির সময় হয়ে আসছিল। আশা করছিলাম এক কোটি টাকার মাছ বিক্রি করতে পারবো। সকালে আমরা এত মরা মাছ দেখে নিজেদের সামলাতে পারছি না। মানুষ কীভাবে এমন কাজ করতে পারে? আমার ছোট ভাই বর্তমানে চেয়ারম্যান, সামনে আবার নির্বাচন। রাজনীতি করলে কিছু শত্রু থাকে , তাছাড়া প্রতিবেশীদের সঙ্গে জমি সংক্রান্ত বিষয়ে আমাদের ঝামেলাও চলছিল। আমরা এখন নিরাপত্তহীনতায় ভুগছি। আমরা মামলা করব। এজাহারে বিস্তারিত থাকবে।

এদিকে ছোট ভাই ইউপি চেয়ারম্যান নাদিম সরকার নরসিংদীর বাইরে থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য (৭ নং ওয়ার্ড) মো. শাহিন মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। দেখলাম পানির ওপরে তেলের মত কিছু একটা ভেসে আছে। আবার দুইটা বিষের বোতলও পাওয়া গেছে। রাতের আঁধারে পুকুরে কেউ কীটনাশক জাতীয় কিছু প্রয়োগ করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে শিবপুর মডেল থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম  বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত আমরা কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



এই বিভাগের আরও