বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলে নতুন চমক

১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:০২ পিএম | আপডেট: ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:৪১ পিএম


বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলে নতুন চমক

স্পোর্টস ডেস্ক:

ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে বাংলাদেশ দলের পারফরম্যান্স সন্তোষজনক না হওয়ায় সিরিজের চট্টগ্রাম পর্বের দুই ম্যাচের জন্য দলে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন আনলো বিসিবি। প্রথমবার টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে সুযোগ পেলেন ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ, মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ও বাঁহাতি ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসেন শান্ত।

এছাড়াও দলে ফেরানো হয়েছে দুই পেসার রুবেল হোসেন ও শফিউল ইসলামকে। আর বাদ পড়েছেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার, অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান ও পেসার ইয়াসিন আরাফাত মিশু। আরাফাত ও মেহেদী কোনো ম্যাচ না খেলেই বাদ পড়লেন। অবশ্য আরাফাতের সাইড স্ট্রেইন সমস্যা রয়েছে। বাঁহাতি পেসার আবু হায়দার রনিকে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের আগে হুট করে দলে নেয়া হয়েছিল। তিনিও না খেলেই বাদ পড়লেন।

আগামী বুধবার ও শনিবার সিরিজে নিজেদের শেষ দুই ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আমিনুল মূলত ব্যাটসম্যান। তবে লেগস্পিনও করতে পারেন। গত ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে বিকেএসপির হয়ে ৪০ গড়ে ৪৪০ রান করে সবার চোখে পড়েন আমিনুল। কিছুদিন আগে হাইপারফরম্যান্স ও ‘এ’ দলের হয়ে খেলেন তিনি। আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে সুযোগ পেয়ে ২২ রান করার পাশাপাশি ২ উইকেট নেন আমিনুল। এরপর শ্রীলঙ্কা ইমার্জিং দলের বিপক্ষে সিরিজে তাকে লেগ স্পিনার হিসেবেই খেলানো হয়। তিনটি ওয়ানডেতে নিয়েছিলেন তিন উইকেট। ‘এ’ দল ও ইমার্জিং দলের হয়ে দারুণ বোলিং করার পর থেকে আমিনুলকে ভাবনায় রেখেছিলেন জাতীয় দলের নির্বাচকরা।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘আমরা মূলত লেগস্পিনার হিসেবেই আমিনুল বিপ্লবকে দলে রেখেছি। বলতে পারেন, সে আমাদের লেগস্পিন অপশন। সবচেয়ে বড় কথা দলে একজন লেগস্পিনরারের বড়ই অভাব। এখন তাই লেগব্রেক বোলার হিসেবে আমরা আমিনুল বিপ্লবকে বেছে নিয়েছি।’ ২০ বছর বয়সী নাঈম শেখ ঢাকা প্রিমিয়ার লীগের গত দুই মৌসুমেই দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছেন। ২০১৭-১৮ মৌসুমে লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জের হয়ে ১২ ম্যাচে ৪৬.৩৩ গড়ে ৫৫৬ রান সংগ্রহ করেন নাঈম। একই ক্লাবের হয়ে গেল মৌসুমে ১৬ ম্যাচে প্রায় ৫৪ গড়ে করেন ৮০৭ রান। ৩ সেঞ্চুরি ও ৫ ফিফটি। স্ট্রাইকরেট ৯৪.৩৮! বাংলাদেশে ‘এ’, ইমার্জিং দল ও বিসিবি একাদশের হয়ে বিগত ম্যাচগুলোতে নিয়মিত ওপেন করেছেন নাঈম।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রস্তুতি টি-টোয়েন্টিতে বিসিবি একাদশের হয়ে ১৪ বলে ২৩ রান করেন নাঈম। গত জুলাইয়ে আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে ১২৬ করেছিলেন এই ওপেনার। সৌম্য এখন পর্যন্ত ৪৩ আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ফিফটি পেয়েছেন মাত্র একটি। ব্যাটিং গড় ১৬.৭৯। চলতি সিরিজে দুই ইনিংসে তার সংগ্রহ ৪ ও ০। এইচপি দলের অধিনায়ক হিসেবে ভারত সফরে যাওয়ার কথা ছিল বাঁহাতি ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসেন শান্তর। ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লীগে নাজমুল হোসেন শান্তর রেকর্ড ভালো নয়। ৪০ ম্যাচে গড় ১৭.৬৬, পঞ্চাশোর্ধ্ব ইনিংস মাত্র একটি। আর ডানহাতি পেসার রুবেল হোসেন সবশেষ টি-টোয়েন্টি খেলেছেন গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও যুক্তরাষ্ট্র সফরে। শফিউল ইসলাম টি-টোয়েন্টিতে শেষবার নেমেছিলেন ২ বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে।


বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দল : সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহীম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, লিটন কুমার দাস, আফিফ হোসেন, তাইজুল ইসলাম, রুবেল হোসেন, শফিউল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, নাজমুল হোসেন শান্ত।


বিভাগ : খেলা


Regent